Bengali remedies for itching skin – চুলকুনি নিরাময়ের সেরা ঘরোয়া উপায়

আপনার কি চুলকানির সমস্যা আছে? এখনকার দিনে এই চুলকানির সমস্যা খুবই সাধারণ অনেক কারণে এই চুলকানি হতে পারে যেমন কীটপতঙ্গ কামড়ে, ত্বকের জীবাণু, সাবান, শুষ্ক আবহাওয়া

চুলকানি সংক্রমনাক হতে পারে এবং এটি আপনাকে আহত করতে পারে আপনার নিতদৈনন্দিন কাজে ব্যাঘাত ঘটাতে পারে অনেক ঘরোয়া উপায় থেকে আপনি চুলকানিরথেকে মুক্তি পেতে পারেন

চুলকানি নিরাময়ে ঘরোয়া প্রতিকার (Home remedies for itching)

ঠান্ডা জল বা বরফ (The cold water or ice packs)

ঠান্ডা জলে স্নান করলে চুলকানি নিরাময় হয় কারণ তা জমে থাকা জীবাণু মুক্ত করে অথবা ক্ষতিগ্রস্ত অংশে বরফ ঘষে দিলে আপনি দ্রুত আরাম পাবেন

খাবার সোডা (Baking soda)

Sleeveless Blouse designs

একবালতি গরমজলে এককাপ খাবার সোডা মিশিয়ে রাখুন ৩০৬০ মিনিট সেই জলে স্নান করে শরীর শুকনো করে নিন

আপেলের সুরা ভিনিগার (Apple cider vinegar)

আপনার স্নানের জলে তিনকাপ ভিনিগার ২০৩০ মিনিট ভিজিয়ে রাখুন তারপর সেটা দিয়ে স্নান করে শরীরটি পরিষ্কার করে নিন

পাতিলেবু (Lemon)

জ্বলন কমাতে আপনি চুলকানির জায়গায় পাতিলেবুররস প্রয়োগ করতে পারেন

ভিটামিন (Vitamins)

ভিটামিন বি সমৃদ্ধ খাবার শরীরের জন্য উপকারক আপনার খাদ্যাভ্যাসে শুকনোফল রাখা উচিত যা আপনার ত্বকে সিক্ততা প্রদান করবে শুকনো ত্বক হওয়া থেকে প্রতিরোধ করবে

জ্বলন-বিমুখ তেল (Anti-inflammatory oils)

পুদিনার তেল, ক্যালেন্ডুলার তেল, চামেলীর তেল, লবঙ্গের তেল, নিম তেল, বিছুটির তেল, থাইমের তেল, ঠান্ডা তেল, ল্যাভেন্ডার তেল এই তেল গুলির মধ্যে জ্বলনবিমুখ গুন্ আছে যা চুলকানি দূর করতে সহজ করে আপনি এগুলি সরাসরি বা স্নানের জলের সাথে মিশিয়ে প্রয়োগ করতে পারেন

ওটা (Oatmeal)

হালকা গরমজলের সাথে দুকাপ ওটা মিশিয়ে নিলে আপনি ঠান্ডা অনুভূতি পাবেন যা চুলকানির উপশম করবে

Subscribe to Blog via Email

নারকেলতেল ও নারকেলদুধ (Coconut oil & coconut milk)

নারকেলদুধ কালোদাগ শুষ্ক ত্বকের প্রতিরোধে সক্ষম শরীরের মুখের ক্ষতিগ্রস্ত অংশে প্রয়োগ করে সারারাত তা লাগিয়ে রাখুন নারকেলতেল চুলকানির সাথে লড়াই করে, কনুইগোড়ালি, হাত অন্যান্য ক্ষতিগ্রস্থ অংশে তা প্রয়োগ করুন সারারাত রেখে দিন, এবং আপনি এর সুফল পরেরদিন সকালে দেখতে পাবেন

পুদিনা (Basil)

এতে প্রচুর পরিমানে ইউজেনল আছে পাঁচ গ্রাম শুকনো পুদিনাপাতা একটি বড় পাত্রে নিন তাকে ফোটান এটাকে এবার ঠান্ডা হতে দিন

পরিষ্কার কাপড়ে ডুবিয়ে ক্ষতিগ্রস্থ অংশে তা প্রয়োগ করুন

এলোভেরা (Aleo vera)

এলোভেরার মধ্যে জলনবিমুখ গুন্ আছে যা ত্বককে সিক্ত ভেজাভাব প্রদান করে এলোভেরা ত্বককে সুরক্ষাপ্রদান করে যার দ্বারা আপনার শরীরের ছিদ্র অংশে কোনোরকম দূষিত পদার্থ প্রবেশ করতে বাধা দেয় একটুকরো এলোভেরা নিয়ে তাকে পিষে জেল তৈরি করুন চুলকানির ওপর তা প্রয়োগ করুন

মধু (Honey)

মধু একটি এন্টিঅক্সিডেন্ট গুণসম্পন্ন বস্তু যা আপনার ত্বককে মসৃণতা প্রদান করে দুচামচ হালকা উষ্ণ মধু নিয়ে তা প্রয়োগ করুন ১৫২০ মিনিট রাখার পর ধুয়ে ফেলুন

গ্লিসারিন (Glycerin)

গ্লিসারিন সিক্ততা প্রদান করে যা আপনার ত্বকে জল সরবরাহ করে চুলকানির ওপরে গোলাপজলের সাথে গ্লিসারিন প্রয়োগ করুন

থাইম (Thyme)

থাইমে জলনবিমুখ গুন্ আছে আপনি এটা পুদিনার সাথেও ব্যবহার করতে পারেন গ্রাম শুকনো থাইম পাতা নিন, একটি বড় পাত্রে তা ভিজিয়ে গরম করুন তাকে ভালো করে চাপা দিয়ে ঠান্ডা হতে দিন শুকনো পরিষ্কার কাপড় তাতে চুবিয়ে চুলানির ওপর প্রয়োগ করুন

জীবনযাপন (Lifestyle)

আপনার জীবনযাপন আপনাকে সুস্থ রাখার জন্য খুবই গুরুত্পূর্ণ ভূমিকা নেয়, তাই কিছু সাবধানতা অবলম্বন জরুরি সুগন্ধি সাবান ব্যবহার না করা উচিত কারণ তার ভিতর যে রাসায়নিক থাকে তা চুলকানিকে অস্বস্তি প্রদান করে পর্যাপ্ত পরিমানে জল খান যাতে শরীর থেকে বজ্র পদার্থ মূত্রের মাধ্যমে নির্গত হয় এটা আপনার শরীরকে চুলকানি জ্বালাভাব থেকে বিরত রাখবে পলিয়েস্টার বা সিনথেটিক কাপড় এড়িয়ে চলা এবিষয়ে ভালো, কারণ এটি চুলকানির সৃষ্টি করে মদ্যপান না করা উচিত কারণ তা শরীরে জলাভাব ঘটায় ও চুলকানি বাড়িয়ে তোলে

loading...