Summer sun tan removal face packs at home in Bengali language – গ্রীষ্মের সূর্যের ট্যান অপসারণকারী ঘরোয়া ফেস প্যাক

ট্যান ত্বকের উপর একটি কালো আস্তরণ যা অতিরিক্ত সূর্যের আলো বা রোডের প্রভাবে হয়। ফর্সা বর্ণের কিছু মানুষ তাদের ত্বকের উপরে মেলানিন আনতে চায়। তাই তারা সমুদ্রের ধরে রৌদ্র স্নান নেয়। মধ্যবর্ণের ব্যাক্তিরা কালো বর্ণের ত্বক পছন্দ করেননা বললেই চলে। সান ট্যান তাদের জন্য এক সমস্যা হয়ে দাঁড়ায়। সান টান এর প্রধানতম কারণ হলো রোদ্রে ত্বক অনাবৃত করা অর্থাৎ দুপুর ১২ তা কি তার পরে রোদে বেরনো। আপনার ইটা জানা বা বোঝা উচিত যে যদি কোনো বিশেষ কারণ বসত সেই সময় রোদে বেরোতে হয় তাহলে তার সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে।

ইউরোপ তথা সমস্ত দক্ষিনি দেশ জুড়ে গ্রীষ্মকাল হলো বাইরে মজা করার সময় , গ্রীষ্মকালীন জামাকাপড় পরে আনন্দ করার সময়। এই সময় সমস্ত পরিবার ,বনধু মিলে পার্ক ও সমুদ্রের ধরে বেড়াতে যাওয়ার সময়। কিন্ত এই সমস্ত কার্য সূর্যের ক্ষতিকর প্রভাবকে ডেকে আনে ত্বকের উপর যা টান এর প্রধান কারণ। বেশিরভাগ মানুষ ট্যান পরা ত্বক নিষ্কাশনের জন্য পার্লার যান কিনতু এই সব রাসায়নিক প্রক্রিয়ার অনেক পার্স প্রতিক্রিয়া আছে যার প্রভাব অনেক সুদূর প্রসারী। কিছু ঘরোয়া উপায় আছে যা প্রাকৃতিক উপাদান দিয়া তৈরী যা ত্বককে পুষ্টি প্রদান করতে সাহায্য করে এবং মৃদু ভাবে ট্যান অপসারণ করে।
ট্যান অথবা ত্বকের কালো স্তর খুবই অস্বস্তিকর পুরুষ ও মহিলা উভয়ের জন্যই। গ্রীষ্মের সময় , সূর্যের দাবদাহ ত্বককে অনাকর্ষণীয় করে তোলে। এর কারণ অস্বাস্থকর সূর্যের রশ্মি। কিন্ত আপনি এই গ্রীষ্মকালীন সূর্যের ট্যান দূর করতে পারেন ঘরে তৈরী কিছু ফেস প্যাক ব্যবহার করে। এমনকি আপনি যদি ক্ষতিকর অতি বেগুনি রশ্মি থেকেও রক্ষা পেতে চান ,আপনার দৈনন্দিন জীবনযাত্রা আপনাকে রোদ্রে বেরোতে বাধ্য করে। কিন্ত আগে থেকেই সতর্কতা অবলম্বন করতে পারেন ঘরোয়া ফেস প্যাক ব্যবহার করে। খুব সহজ কিছু উপাদান একসঙ্গে মিশিয়ে , আপনি ত্বকের ট্যান এর বিরুদ্ধে খুব কার্যকর সমাধান তৈরী করতে পারেন।

গ্রীষ্মের ট্যান নিষ্কাশন করার জন্য ফেস প্যাক (Face packs to remove summer tan)

নিম্নলিখিত সমস্ত পণ্য প্রাকৃতিক এবং ধীরে ধীরে ত্বকের ট্যান নিষ্কাশন করে। এইগুলি গ্রীষ্ম অন্য কালের জন্য অত্যন্ত উপযোগী। ত্বক মৃদু সাবান দিয়া ধুয়ে তার পর এই প্যাক ব্যবহার করতে হবে।

লেবু এলোভেরা ফেস প্যাক (Lemon and aloe vera face pack)

লেবু একটি প্রাকৃটিক উত্তম বিরঞ্জক পদার্থ ট্যান যুক্ত ত্বকের জন্য। এতে প্রচুর ঔষধি গুন্ আছে যা ত্বকের নিচে জমা ফ্রি রাডিক্যালস এর সঙ্গে যুদ্ধ করতে সাহায্য করে। লেবুতে উপস্থিত ভিটামিন সি নিস্তেজ ত্বকে উজ্জ্বলতা ফেরাতে সাহায্য করে।
এলোভেরা এক ধরণের গাছ যা আন্টি সেপটিক তৈরী করে এবং ব্যাক্টেরিয়া, ছত্রাক ,ভাইরাস বিনাশ করে যা দূষণ, ধুলো বালি থেকে ত্বকে আসে। এই ফেস প্যাকটি বিরঞ্জক পদার্থ হিসেবে ব্যবহার করা যেতে পারে যা ত্বককে ট্যান এর হাত থেকে রক্ষা করে।

দই এবং ব্যাসন ফেস পাক (Curd and gram flour face pack)

দই মৃত ত্বকের কোষ নিষ্কাশনে সাহায্য করে এবং ত্বককে ঠান্ডা করে। ব্যাসন ত্বককে ফর্সা এবং উজ্জ্বল করে তুলতে সাহায্য করে।

হলুদ দই এবং মধুর ফেস পাক (Turmeric powder, yogurt and honey face pack)

হলুদ অতি উত্তম এন্টিসেপটিক হিসেবে পরিচিত। হলুদ ব্যাথা উপশম করে এবং কাটা ছেড়া জাগায় সংক্রমণ রোধ করে। মধু ও দই অতি উত্তম ত্বকে আদ্রতা প্রদানকারী পদার্থ যা ত্বকের স্থিতিস্থাপকতা ও নমনীয়তা বজায় রাখতে সাহায্যসাহায্য করে। এই প্যাকটি ত্বকে গরমকালে আদ্রতা বজায় রাখে এই সময় ত্বক শুষ্ক হতে পারে।

চন্দন ও গোলাপজল ফেস প্যাক (Sandal wood and rosewater face pack)

এটি গ্রীষ্মকালে ত্বকে ক্লিনসিং ,টোনিং এবং ঠান্ডা করতে ব্যবহার হয়। এই প্যাকটি রোদে পোড়া ত্বক থেকে রক্ষা করে এবং ট্যান পড়া ত্বক থেকে নিস্তার দেয়।

গ্রীষ্মের ট্যানের জন্য শশা লেবু ও গোলাপজলের প্যাক (Cucumber, lemon and rose water pack for summer tan)

লেবু অম্লধর্মী যা প্রাকৃতিক বিরঞ্জক এবং ত্বকের ট্যান এবং ব্রণ দূর কোর্ট সাহায্য করে। শসা এবং লেবুর রস ত্বক ঠান্ডা করতে এবং ক্ষতিগ্রস্ত ত্বককে কোমল ও মসৃন করে তোলে। একটি বাটিতে এক টেবিল চামচ করে শসার রস ,লেবুর রস ও গোলাপজল নিতে হবে। সেগুলিকে ভালো ভাবে মিশিয়ে ট্যান পড়া জায়গা গুলিতে ভালো ভাবে লাগাতে হবে। দশ মিনিট পরে সেটিকে ঠান্ডা জলে ভালো করে ধুয়ে ফেলতে হবে।

কেশর এবং ফ্রেশ ক্রিম ফেস প্যাক (Saffron and fresh cream face pack)

কেশর বা স্যাফ্রন একটি পুরোনো জিনিস কিন্ত এর গুণগুলি নতুন। এটি ত্বক টোন করতে ,ট্যান নিষ্কাশন করতে ,লড়তে ,ঔজ্জল্য বাড়াতে ব্রণ ও ফুলকুঁড়ি তাড়াতে সাহায্য করে। কিছু রঙিন কেশরের টুকরো নিয়ে তাতে ২ চামচ মিল্ক ক্রিম মিশিয়ে সারা রাত ভিজিয়ে রাখতে হবে। সকালে এটি আঙ্গুল দিয়া ভালো করে মিশিয়ে মুখে মাখতে হবে। এবার ২০ মিনিটের জন্য সকালে দিতে হবে এবং জলে ধুয়ে ফেলতে হবে। এটি ত্বককে গভীর ভাবে নম্রতা প্রদান করে।

ত্বককে গ্রীষ্মের ট্যান থেকে বাঁচাতে কিছু উপায় (Tips on protecting the skin from summer tan)

• -গ্রীষ্মের দুপুরের দিকে যখন সূর্যের রোদ প্রখর হয় সেই সময় ঘরের ভেতরে থাকা বাঞ্চনীয়।
• -বাইরে বেরোনোর আধ ঘন্টা আগে সান্সস্ক্রিন লোশন মেখে বেরোতে হবে।
• -রোদ চশমা , রোদের টুপি ,ও অন্নান্ন সরঞ্জাম ব্যবহার করতে হবে ত্বককে সূর্যের ক্ষতিকর অতি বেগুনি রশ্মি থেকে রক্ষা করতে।
• -দৈহিক পরিশ্রমের কাজ বন্ধ করে দিতে হবে বিশেষ করে দিনের বেলা।
• -ঠান্ডা দুধ এবং বরফের মিশ্রণ মুখের ত্বকে ব্যবহার করতে হবে। পনেরো থেকে কুড়ি মিনিট রেখে সেটি ধুয়ে ফেলতে হবে বাইরে বেরোনোর আগে।
• -সবাইকে হালকা জামা কাপড় পড়তে হবে বিশেষ করে গ্রীষ্মের সময় সমস্ত শরীর এবং হাত পা ঢেকে রাখতে হবে।
• -জল এবং অন্নান্ন ফলের রস প্রচুর পরিমানে পান করতে হবে শরীরকে শুষ্কতার হাত থেকে রক্ষা পেতে।

গ্রীষ্মে ভয় পাওয়ার মতো এমন কোনো কারণ নেই বললেই চলে। সবাইকে একটা ছোট্ট সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে এবং তাতে গ্রীষ্ম খুব ভালো ভাবে উপভোগ করা যেতে পারে। এই সময় মানুষ বিভিন্ন গ্রীষ্মকালীন খেলা ধুলায় লিপ্ত হয়ে থাকে কারণ এই সময় সূর্য অনেক্ষন কিরণ দেয়। হয়তো সেই সময়টা খুবই উপভোগ্য কিন্ত কিছু সময় পরে লক্ষ করা যায় যে মুখ এবং হাত পা তথা সমস্ত অনাবৃত স্থান একটি কালো আস্তরণে ছেয়ে গেছে । এর থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য কিছু ঘরোয়া উপায় অবলম্বন করতে হবে।

গ্রীষ্মের ট্যানএর কিছু ঘরোয়া ফেস প্যাক (Homemade face packs for summer tan)

পেঁপে এবং মধু (Papaya and honey)

আপনাকে বাজার থেকে টাটকা এবং পাকা একটি পেঁপে কিনতে হবে এই প্রাকৃতিক ফেস প্যাকটি তৈরী করার জন্য। এই পেঁপের ১/৪ অংশ কেটে জুসার এ নরম পেস্ট বানাতে হবে। এবার এক চামচ মধু নিয়ে তা পাকা পেঁপের সঙ্গে মেশাতে হবে। এই বার ফেস ওয়াশ দিয়া ভালো করে মুখ ধুয়ে ফেলতে হবে এবং শুকনো কাপড় দিয়া মুছে ফেলতে হবে। এবার ফেস প্যাকটি মুখে সমান ভাবে লাগাতে হবে। প্যাকটি ত্রিশ মিনিট শুকাতে দিতে হবে। এর পর ঠান্ডা জলে মুহ ধুয়ে ফেলতে হবে।
এই ফেস প্যাকটি ত্বকের ট্যান এর জন্য খুব কার্যকরী কারন পেঁপেতে উপস্থিত প্রাকৃতিক এনজয়ম ত্বকের স্তর তোলা এবং ত্বকের ফর্সা ভাব ফুটিয়ে তুলতে সাহায্য করে।

রেড লেন্টিল (মুসুরির ডাল) এবং এলোভেরা (Red lentil (Masoor dal) with aloe vera)

মুসুরির ডালে এক অসাধারণ পরিষ্কার করার ক্ষমতা আছে এটি ত্বকের ট্যান পরিষ্কার করে। ট্যান দূরীকরণের সঙ্গে সঙ্গে আপনার সূর্যের রশ্মির দ্বারা ক্ষতিগ্রস্ত ত্বককে নবজীবন প্রদান করে। প্রথমে এক চামচ মুসুর দল নিতে হবে তার পর সেটি সারা রাট জলে ভিজিয়ে রাখতে হবে। এবার গ্রিনডে অথবা শিলনোড়া দিয়া বেটে একটি পেস্ট তৈরী করতে হবে। যাতে কোনো গুঁড়ো ভাব না থাকে। এবার এক চামচ এলোভেরা মেশাতে হবে। তার পর সমস্ত মুখে মাখতে হবে। এবং ধুয়ে ফেলতে হবে।

দই এবংকমলালেবুর রস (Yogurt and orange juice)

বাজার থেকে টাটকা কমলা এনে তা রস করতে হবে। তার পর একটি পাত্র এনে তাতে এক চামচ কমলা লেবুর রস লেবুর রস মিশিয়ে সম পরিমান দই মেশাতে হবে। এবার এই মিশ্রণটি ভালো ভাবে মুখে লাগাতে হবে।এই পেস্ট টি কুড়ি মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলতে হবে। ত্বকের কালো ভাব ওঠানোর সঙ্গে সঙ্গে ত্বকের ঝুলে যাওয়া রোধ করে ত্বককে বৃদ্ধ হয় থেকে আটকায়। কমলা লেবুর মধ্যস্থিত ভিটামিন সি ত্বককে ফর্সা ও উজ্জ্বল করে তোলে। আবার দই তে উপস্থিত প্রাকৃতিক বিরঞ্জক ত্বককে ফর্সা করে তুলতে সাহায্য করে।

গুঁড়ো দুধ আর আলমন্ড অয়েল (Milk powder with almond oil)

বাজারে প্রাপ্ত গুঁড়ো দুধ অথবা তরল দুধ আন্টি ট্যান ফেস প্যাক বানাতে ব্যবহৃত হয়। দু চামচ তরল দুধ অথবা দু চামচ গুঁড়ো দুধ ও জল একটি পাত্রে নিতে হবে। এখন এর মধ্যে কিছু ফোটা আলমন্ড অয়েল যোগ করতে হবে। এবার চামচের সাহায্যে ভালো করে এটিকে মেশাতে হবে এবং মুখে সময় ভাবে লাগাতে হবে। এই প্যাকটি ২০ মিনিট রাখতে হবে এর পর জলে ধুয়ে ফেলতে হবে। দুধ আপনার ত্বককে পরিষ্কার করতে সাহায্য করে এবং ত্বককে ফরসাও করে এর মধ্যস্থিত আলমন্ড অয়েল ত্বককে আদ্রতা প্রদান করে।

আনারস ও মধু (Pine apple with honey)

আনারস ফল হিসেবে খুবই সুস্বাদু , অথচ এর প্রাকৃতিক গুন্ গুলিও অস্বীকার করা যায় না। এই ক্রান্তীয় ফল মধ্যস্থ এনজাইম সূর্যের রোদের ফলে সৃষ্ট মৃত কোষ গুলিকে নিষ্কাশনে সাহায্য করে।
এই সুস্বাদু ফলটি ত্বকের বৃদ্ধাবস্থা থেকে রেহাই দিতে খুব উপযোগী। এটি বানাতে চামচ মধু এবং আনারসের রোয়া মিশিয়ে পেস্ট করতে হবে। এই পেস্টটি আপনার ত্বকের উপর ব্যবহার করতে হবে যা ট্যান নিষ্কাশন করবে এবং ত্বককে সতেজতা প্রদান করবে। এই প্যাকটি সপ্তাহে তিন বার ব্যবহার করা যেতে পারে ট্যান এর হাত থেকে মুক্তি পেতে।

দুধ এবং কেশর প্যাক (Milk and saffron pack)

দুধ একটি প্রাকৃতিক ক্লেনজার যা ত্বককে পরিষ্কার এবং উজ্জ্বল করে। দুধ এবং কেশরের মিশ্রণ আপনার ত্বকে এনে দেয় এক অসাধারণ উজ্জ্বলতা। আপনাকে যা করতে হবে তা হলো একটা ছোট পাত্রে কিছু দুধ নিতে হবে তার পর তাতে কিছু কেশরের টুকরো ছড়িয়ে দিতে হবে। এবার একটি মিশ্রণ তৈরী করে সারা মুখে লাগাতে হবে। এটি আপনার মুখের ট্যানের স্তরকে দূরীভূত করবে।

বাঁধাকপি ও হলুদের প্যাক (Cabbage and turmeric pack)

হলুদের খুব ত্বক পরিষ্কার করার ক্ষমতা আছে আর বাঁধাকপি সূর্যের রশ্মির এক উত্তম পরিপূরক। বাঁধাকপির রসে উপস্থিত অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ও ভেষজ এনজাইম শরীরের মুক্ত মৌল দূর করতে সাহায্য করে। এমনকি এর মধ্যে উপস্থিত ভিটামিন সি ব্রণ ফুসকুড়ি ও অন্যান্য ত্বকের সমস্যা দূর করতে সাহায্য করে। আপনি এই ফেস প্যাকটি ব্যবহার করে ট্যানের থেকে দূরে থাকতে পারেন।

বাটারমিল্ক এবং ওট মিল (Buttermilk with oatmeal)

ওট মিল খুব সহজেই ঘরে পাওয়া যায় , এটি খুব স্বাস্থকর খাওয়ারের মধ্যে একটি। এটি এখন ত্বকের ট্যান উপশমকারী একটি উপাদান হিসেবেও গণ্য করা হয়। আন্নাকে প্রথমে এক চামচ ওট মিল নিয়ে একটি পাত্রে রাখতে হবে। তার পর এতে এক চামচ বাটার মিল্ক মেশাতে হবে। এবার এগুলি ভালো করে মিশিয়ে একটি মিশ্রণ তৈরী করে তা ত্বকের উপর লাগাতে হবে। এবার এটিকে কুড়ি মিনিট রেখে আঙুলের মাথার সাহায্যে ঘষে ঘষে তুলে ফেলতে হবে। এটি স্ক্র্যাবার হিসেবেও ভালো কাজ করে। এখন এই মিশ্রণটি ঠান্ডা জলে ধুয়ে ফেলতে হবে। সপ্তাহে দু দিন এটি করলে ত্বক একেবারে ট্যান শুন্য হয়ে উঠবে।

loading...